এবারের নির্বাচন বড় চ্যালেঞ্জ- পঞ্চগড়ে নৌ পরিবহন মন্ত্রী

0
319

মোঃ আলমগীর হোসাইনঃ নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, এবারের নির্বাচন আমাদের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এই নির্বাচনের মাধ্যমে যারা জামায়াত-শিবির, রাজাকার-আলবদর এবং সন্ত্রাস সৃষ্টি করেছেন তাদেরকে প্রতিহত করার এখন সময়।
শুক্রবার দুপুরে পঞ্চগড় সার্কিট হাউজে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ জাসদ, মুক্তিযোদ্ধা, ব্যবসায়ী, শ্রমিক নেতা ও সাংবাদিকদের সাথে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।
তিনি আরও বলেন, সংলাপের কথা বলছেন কাদের সাথে সংলাপ করব যারা সংলাপের মূল্য বুঝে না, মূল্যায়ন করে না, যে মানুষ একজন প্রধানমন্ত্রীকে সম্মান দিতে জানে না। ফোনে যখন তাকে সংলাপের কথা বলা হলো তখন কি কথা হয়েছিল তা আপনারা সবাই জানেন। যারা স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি রাজাকার-আলবদরদের পক্ষ নেবে তাদের সাথে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের কোনও সংলাপ হতে পারে না।

নৌমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসেছিলেন তখন ২০০১ সালে তিনি স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করেছিলেন। ১২টি স্থলবন্দর তিনি গেজেটভুক্ত করে ছিলেন। পরে খালেদা জিয়া ক্ষমতায় অসার পর একটি স্থল বন্দরও সচল করেন নি। পরবর্তীতে শেখ হাসিনা ১০ বছরে ১০টি স্থল বন্দর সচল করছেন। এখন আমাদের ২৩টি স্থল বন্দরের মধ্যে ১২টি স্থল বন্দর সচল রয়েছে।

পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের আমদারি-রপ্তানি কার্যক্রম আরও বেগবান করতেই আমরা আজ এসেছি।
এ ছাড়াও সম্প্রতি নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন সম্পর্কে শাজাহান খান বলেন,
‘ছাত্র আন্দোলনের নামে যারা মুক্তিযোদ্ধাদের অপমান করল, মুক্তিযোদ্ধাদের নামে অকথ্য ভাষায় স্ট্যাটাস দিল এরা কারা? তোমরা কারা যারা বঙ্গবন্ধুকে কটাক্ষ করে গলায় পোস্টার ঝুলাল, যারা পুলিশ, প্রশাসন ও সরকার সম্পর্কে অশ্লীল ভাষায় পোস্টার লিখে গলায় ঝুলিয়ে রাস্তায় দাঁড়াল এরা কারা। এরা কারা যারা একটা জয়বাংলার শ্লোগান দিল না। ’

তিনি বলেন, যারা কোটা সংস্কারের আন্দোলন করছে তারা মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করতে চায়। তাই মুক্তিযোদ্ধাদের বসে থাকলে চলবে না।

সভায় আর উপস্থিত ছিলেন পঞ্চগড়-১ আসনের সংসদ সদস্য নাজমুল হক প্রধান, পঞ্চগড়-২ আসনে সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম সুজন, বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়াম্যান তপন কুমার চক্রবর্তী, পঞ্চগড় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার সাদাত সম্রাট, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম, পুলিশ সুপার গিয়াস উদ্দিন আহমেদ সহ বিভিন্ন ব্যবসায় সংগঠন ও শ্রমিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এ ছাড়াও ঐদিন বিকেলে তিনি বাংলাবান্ধা স্থল বন্দরের আমদানি রপ্তানি কার্যক্রম আরও বেগবান করার লক্ষ্যে বন্দরের উপদেষ্টা কমিটির প্রথম বৈঠকে অংশগ্রহণ করবেন। এরপর তিনি পঞ্চগড় শের-ই-বাংলা পার্কে জেলা আওয়ামী লীগের এক জনসভায় বক্তব্য রাখেন।

পঞ্চগড় প্রতিনিধি, আলমগীর হোসাইন  

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here